in ,

বিএসএইচআরএম’র বাজেট আলোচনায় মানবসম্পদ বিষয়ক পৃথক মন্ত্রণালয় স্থাপনের দাবি

বাংলাদেশ সোসাইটি ফর হিউম্যান রিসোর্সেস ম্যানেজমেন্ট (বিএসএইচআরএম) এবং বিএসএইচআরএম ইন্সিটিউট অফ প্রফেশনাল ডেভেলপমেন্ট (বিআইপিডি) এর উদ্দ্যোগে আজ ৯ জুন সন্ধ্যায় “বাংলাদেশের জাতীয় বাজেট ২০২১-২২” প্রেক্ষিতঃ মানবসম্পদ উন্নয়ন এই শিরোনামে অনলাইন একটি প্রেস কনফারেন্স অনুষ্ঠিত হয়েছে।

উক্ত প্রেস কনফারেন্স সভাপত্বিত করেন এবং স্বাগত বক্তব্য রাখেন মোহাম্মদ মাশেকুর রহমান খান (প্রেসিডেন্ট, বিএসএইচআরএম, চেয়ারম্যন, বিআইপিডি, ভাইস প্রসিডেন্ট, এপিএফএইচআরএম)। আরও বক্তব্য রাখেন মুহম্মদ নজরুল ইসলাম (জেনারেল সেক্রেটারি, বিএসএইচআরএম, ম্যন্যেজিং ডাইরেক্টর ও প্রধান নির্বাহী, বিআইপিডি), মোঃ শফিকুল আলম (এলএলবি, এসিএস, এফসিএ, এফসিএমএ, ট্রেজারার, বিএসএইচআরএম, ডাইরেক্টর, বিআইপিডি), এবং কাজী রাকিব উদ্দিন আহমেদ (ভাইস প্রসিডেন্ট, বিএসএইচআরএম, ভাইস চেয়ারম্যন ও ডাইরেক্টর, বিআইপিডি)।

অনুষ্ঠানটি সভাপত্বিত ও সঞ্চালনার দ্বায়িত্বে ছিলেন মোহাম্মদ মাশেকুর রহমান খান (প্রেসিডেন্ট, বিএসএইচআরএম, চেয়ারম্যন, বিআইপিডি, ভাইস প্রসিডেন্ট, এপিএফএইচআরএম)। তিনি তার স্বাগত ব্যক্তব্যে উল্লেখ করেন যে, বাংলাদেশের বর্তমান (২০২১-২২) বাজেটে মানবসম্পদ উন্নয়নের বিষয়টি যথাযথ গুরুত্ব প্রদান করা হয়নি, বাংলাদেশের দক্ষজনশক্তি গঠনের জন্য সুনির্দিষ্ট যুগপোযেগী কারিগরি শিক্ষা প্রশিক্ষণ ব্যবস্থা চালু করা অত্যন্ত জরুরী, সুনিদিষ্ট প্রশিক্ষণ ব্যবস্থা না থাকলে দক্ষজনশক্তি গঠন করা সম্ভব হবে না। বর্তমান করোনা ভাইরাস (কভিড-১৯) জনিত মহাদূর্যোগ কালীন বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান সমূহে কর্মরত শ্রমিক কর্মচারী, কর্মকর্তা ছাটাই, কারখানা বন্ধ, লে-অফ না করার জন্য নির্দেশনা বা আর্থিক প্রণোদনা বিষয়টি বাজেট ২০২১-২২ নিশ্চিত করার আহ্বান জানান। তিনি আরও উল্লেখ করেন যে, বর্তমান সময়ের দাবী, বাংলাদেশের মানবসম্পদ বিষয়ক একটি পৃথক মন্ত্রণালয় স্থাপন করা যাতে করে মানবসম্পদ বিষয়ক সকল প্রকার নীতি নির্দেশনা, তদারকী একটি নিদিষ্ট মন্ত্রাণালয়ের অধীনে পরিচালিত হয় এবং শ্রম আইনটিও সংশোধন করার আহ্বান জনান। পরিশেষে তিনি বলেন বিএসএইচআরএম মানবসম্পদ বিষয়ক যেকোন কাজ বাংলাদেশে সরকারের সাথে একাত্ব হয়ে কাজ করতে অত্যন্ত আগ্রহী।

মুহম্মদ নজরুল ইসলাম (জেনারেল সেক্রেটারি, বিএসএইচআরএম, ম্যন্যেজিং ডাইরেক্টর ও প্রধান নির্বাহী, বিআইপিডি)তার আলোচনায় উল্লেখ করেন জাতীয় বাজেট দেশের সাধারণ মানুষের কাছে কি বার্তা দেয়? শুধুই কি তার খরচ বা নিত্যা ব্যায় কত বাড়ল বা কমল? না কি রাষ্ট্রযন্ত্র তার জীবনযাপনে সহায়ক/ নিয়ন্ত্রক/ বা নির্দেশকের ভুমিকায় অবতীর্ণ হবে? না কি রাষ্ট্রযন্ত্র তার জবাবদিহিতার অংশ হিসাবে প্রজাতন্ত্রের মালিককে বাৎসরিক আয়/ বায়ের হিসাব উপস্থাপন করছে। আমার কাছে তা আমার জীবনযাপনে সহায়ক/ নিয়ন্ত্রক/ বা নির্দেশকের ভুমিকায় অবতীর্ণ হওয়ার একটি কার্যকরী মাধ্যাম বলেই মনে হয়। আর তাই আমার খুদ্রতম চাওয়া, এই দেশের মানবসম্পদ উন্নয়নে এই বার্ষিক আয়-ব্যয় বিবরণীতে কতটুকু বরাদ্ধ আছে, সেই বরাদ্ধক্রীত অংশ কিভাবে পরিপূর্ণ ব্যাবহার নিশ্চিত করা যায় এই বিষয়ে আমাদের আজকের এই আলোচনা নিশ্চিতভাবে আগামী বছরটিতে আমাদেরকে পথনির্দেশনা দেবে স্বাধীনতার ৫০তম বছরে এই আমাদের প্রত্যাশা।

এছাড়াও কনফারেন্সে উপস্থিত ছিলেন এনটিভি’র সহকারী ব্যবস্থাপক (মানবসম্পদ) ও বিএসএইচআরএম’র সদস্য জাহিদ হাসান সুমন, বিএসএইচআরএম’র জয়েন্ট সেক্রেটারি ও মুন্ডি ফার্মার মানবসম্পদ বিভাগের প্রধান মোঃ মুত্তাকিন হাসান প্রমূখ ব্যক্তিবর্গ।

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে করোনা সংক্রমণ নিয়ে উদ্বেগ

মুম্বাইয়ে ভবন ধসে ১১ জনের মৃত্যু